আজঃ ২রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ - ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং - রাত ৮:৫৪

জাতীয় দলের নতুন গোলকিপার কলসিন্দুরের পূর্ণিমা

Published: জানু ২০, ২০১৯ - ২:৫২ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক ঃ
বাংলাদেশের নারী ফুটবলের আতুরঘর হিসেবে পরিচিত ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার কলসিন্দুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এবার নতুন গোলকিপার হিসেবে জাতীয় নারী ফুটবল অনুর্দ্ধ-১৫ দলের ক্যাম্পে যোগ দিয়েছে পূর্ণিমা বাসপর। এনিয়ে জাতীয় নারী ফুটবল দলে কলসিন্দুর স্কুলের ১৩ জন ফুটবলার। শনিবার সন্ধ্যায় কলসিন্দুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়(স্কুল অ্যান্ড) কলেজ এর মেয়েদের কোচ জুয়েল মিয়া গোলকিপার পূর্ণিমাকে নিয়ে বাফুফের ক্যাম্পে যোগ দেয়। ৯ম শ্রেণির ছাত্রী পূর্ণিমার জীবনের গল্প খুবই করুন।কিন্তু ফুটবলের প্রতি ভালবাসা এসব কোন বাধা হতে পারেনি।জন্মের কিছুদিন পরই বাবা সুভাষ বাসপর মারা যান। নিজের কোন ঘরবাড়ি না থাকায় আশ্রয় নেই কলসিন্দুর বাজারে সরকারী খাদ্য গুদামের একটি পরিত্যাক্ত ঘরে। বাজার কমিটি এই ঘরটিতে থাকার সুযোগ করে দেয়। বিনিময়ে পূর্ণিমার মা বাজারের পরিষ্কার রাখার কাজ করেন।এভাবেই অভাবের সংসারে মা বাসন্তী বাসপর কোনভাবে দিনযাপন করেন।জীবন সংগ্রামে ঠিকে থাকায় যেখানে কঠিন সেখানে মেয়ে খেলবে ফুটবল তা ভাবতেই পারেন না পূর্ণিমার মা। কিন্তু কলসিন্দুরতো ফুটবলের জন্য বাংরাদেশের ইতিহাস।মারিয়াদের খেলা দেখে আগ্রহ বাড়ে পূর্ণিমার। নিজেও খেলার সাথে জড়িয়ে যায়। অত্যন্ত লাজুক,বিনয়ী মেয়েটির স্বপ্ন ছিল জাতীয় নারী ফুটবল দলে খেলবে। সেই স্বপ্ন পূরণের সহযাত্রী কোচ জুয়েল মিয়া ও কলসিন্দুর স্কুলের সহকারী অধ্যাপক মালা রাণী সরকার। জুয়েল মিয়া পূর্ণিমাকে নিয়ে সবসময় বাড়তি পরিকল্পনা করার কথা জানান। আর পারিবারিকভাবে আর্থিক সহযোগিতাসহ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করতেন সহকারী অধ্যাপক মালা রাণী সরকার।কথা হয় পূর্ণিমার সাথে,সে জানায় আমার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল জাতীয় দলে খেলব। আমি ক্যাম্পে ডাক পেয়েছি প্রথমবার জুয়েল ভাইয়ের কাছ থেকে জেনে অনেক খুশি হয়েছি। এ ব্যাপারে কলসিন্দুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের সহকারী অধ্যাপক ও নারী ফুটবলারদের টিম ম্যানেজার মালা রাণী সরকার জানান আমাদের কলসিন্দুর থেকে জাতীয় দলের ফুটবলাররা দেশ বিদেশে সুনাম বয়ে আনছে,ভবিষতেও মুখ উজ্জল করবে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ধোবাউড়া কলসিন্দুরের প্রতি সুদৃষ্টি কামনা করছি।

এ জাতীয় আরো খবর